Model Activity Task

Model Activity Task Class 6 Geography Part 1 2 3

Uncategorized

Model Activity Task

পার্ট : ১

নিচের প্রশ্নগুলির উত্তর দাও :
১. চাঁদের পরিবেশ সম্পর্কে চন্দ্র অভিযান কারী দলের অভিজ্ঞতার বিবরণ দাও ।
উত্তর : চাঁদে কোন বাতাস নেই। তাই এখানে কেউ কারোর কথা শুনতে পাবে না। তাই কথা বলার প্রধান মাধ্যম হলো ইশারা। কৃত্তিম ভাবে শ্বাস নিতে হবে। বাতাস না থাকার কারণে এখানে ওজন অনেক কম হয়। পৃথিবীতে কোন ব্যক্তির ওজন 60 কেজি হলে চাঁদে সেই ব্যক্তির ওজন হবে 10 কেজি। তাই অনেক ভারী ভারী জিনিসপত্র নিয়েও অনেক দূর যাওয়া যায় এবং লাফানোও যায়।

২. পৃথিবীর আকৃতি পৃথিবীর মতো যুক্তি সহকারে বক্তব্যটি ব্যাখ্যা দাও।
উত্তর : পৃথিবীর আকৃতি নিয়ে অনেক মতামত থাকলেও বেশিরভাগ ভৌগলিক পৃথিবীর আকৃতি পৃথিবীর মতো বলেছেন। যেটিকে জিয়ড বলা হয়। কারণ পৃথিবীর সর্বোচ্চ উঁচু স্থান মাউন্ট এভারেস্ট 8848 মিটার আবার মারিয়ানা খাতের গভীরতা প্রায় 11000 মিটার। অনেক ভৌগোলিক কারণ দেখিয়েছেন নিজের অক্ষের চারপাশে ঘুরতে ঘুরতে পৃথিবীর মাঝের দিকটা কিছুটা স্ফীত হয়ে গিয়েছে। যেটিকে ন্যাশপাতির সঙ্গে তুলনা করা যায়।

৩. একটি বৃত্ত অঙ্কন করে পাঁচটি গুরুত্বপূর্ণ অক্ষরেখা মানসহ চিহ্নিত করো।

৪. তোমার দেশের উত্তরের সমভূমি অঞ্চল ঘনবসতিপূর্ণ হওয়ার কারণ ব্যাখ্যা করো।
উত্তর : পাঞ্জাব হরিয়ানা উত্তরপ্রদেশ এইগুলি উত্তরের সমভূমি অঞ্চল হিসেবে পরিচিত। খরস্রোতা নদী এখান থেকে প্রবাহিত হওয়ার কারণে নুড়ি কাঁকড় ইত্যাদি বয়ে এনে সমভূমি সৃষ্টি করেছে এবং সেই সমভূমির পাশে নদী থাকায় যে কোন ফসল উৎপাদনে সাহায্য হয়। সমভূমি হওয়ার কারণে যাতায়াত ব্যবস্থা গড়ে উঠেছে। উচু উচু বিল্ডিং তৈরি করা যাচ্ছে, ফলে বসতি ব্যবস্থা উন্নত থেকে উন্নততর হচ্ছে।

Model Activity Task

পার্ট : ২

নিচের প্রশ্নগুলির উত্তর দাও :
১. যে গ্রহ নিজের অক্ষের চারদিকে উত্তর থেকে দক্ষিনে ঘরে তার নাম ও দুটি বৈশিষ্ট্য লেখো।
উত্তর : ইউরেনাস গ্রহ তার নিজের অক্ষের চারিদিকে উত্তর থেকে দক্ষিনে ঘোরে।
বৈশিষ্ট্য : ১) সূর্যের দিক থেকে এর অবস্থান সপ্তম।
২) আকৃতির বিচারে এটি তৃতীয় বৃহত্তম গ্রহ।
৩) সূর্যকে একবার প্রদক্ষিণ করে আসতে ইউরেনাসের 84 বছর সময় লাগে।
D) ইউরেনাসের 27 টি উপগ্রহ আছে।

২. আন্তর্জাতিক তারিখ রেখা বাঁকিয়ে আঁকা হয়েছে কেন?
উত্তর : আন্তর্জাতিক তারিখ রেখা বলা হয় 180 ডিগ্রি দ্রাঘিমা রেখা কে। এই রেখা পূর্ব দিকে গেলে একদিন যোগ হয় আর পশ্চিম দিকে গেলে একদিন বিয়োগ হয়। এই সমস্যা মেটানোর জন্য লেখাটিকে প্রশান্ত মহাসাগরের ওপর দিয়ে অঙ্কিত করা হয়েছিল। কিন্তু মাঝে কিছু দেশ ও দীপ পড়ে গিয়েছিল। সেই জন্য একে বাঁকিয়ে দেওয়া হয়েছে। যাতে একই দেশে দুটি তারিখ না হয়।

৩. কয়াল এর দুটি বৈশিষ্ট্য উল্লেখ করো।
উত্তর : এটি স্থল ভাগ দ্বারা আবদ্ধ থাকে।
এটি এক দিকে সমুদ্রের সাথে উন্মুক্ত থাকে।

Model Activity Task

৪. থর মরুভূমি জনবিরল কেন?
উত্তর : ভারতের একমাত্র মরুভূমির নাম থর মরুভূমি। এটি রাজস্থানের প্রায় 70 শতাংশ জায়গা জুড়ে অবস্থান করেছে। জনবসতি গড়ে ওঠার জন্য যেগুলো প্রয়োজন হয় যেমন কৃষিকাজ নদী-নালা সমভূমির উপযুক্ত মাটি। কিন্তু থর মরুভূমিতে খুব অল্প বৃষ্টির কারণে গাছপালা খুবই কম। এখানে নদী প্রবাহিত হয় না। উপযুক্ত কৃষি কাজের পরিবেশ নেই। তাই থর মরুভূমি জনবিরল।

পার্ট : ৩

১. নিচের বিকল্পগুলি থেকে সঠিক বিকল্পটি বেছে নিয়ে লেখো।
ক) বাতাসে ধুলোর কোনায় সূর্যরশ্মি প্রতিফলিত হয়ে বিচ্ছুরিত হলে আকাশের রং হয় নীল/ সাদা/ কালো/ ধূসর ।
উত্তর : নীল।

খ) জলপ্রবাহ, বৃষ্টিপাত, ভৌমজল ও বাষ্পীভবন এদের সঠিক নিয়মে লিখলে যে প্রবাহপথ তৈরি হবে তা হল –
উত্তর : জলপ্রবাহ – বাষ্পীভবন – বৃষ্টিপাত – ভৌমজল – প্রবাহ।

গ) অতি সংক্ষেপে উত্তর লেখ :
ক) বারিমন্ডল বলতে কী বোঝায়?
উত্তর : জলচক্রের ফলে নিচের জলরাশি বাষ্পীভূত হয়ে উপরে জলীয়বাষ্পের আকার ধারণ করে, বৃষ্টির ধারায় পৃথিবীতে নেমে আসে। তা পৃথিবীতে জলরাশির পরিমাণকে আরো বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। এইভাবে সাগর মহাসাগর এর পরিমাণ বা আকার বৃদ্ধি পায়। একেই বারিমন্ডল বলা হয়।

খ) মহাদেশ সঞ্চরন কাকে বলে?
উত্তর : ভূপৃষ্ঠের অভ্যন্তরে প্রচণ্ড চাপের ও তাপের ফলে, যে পরিচলন স্রোত এর মাধ্যমে মহাদেশের কতগুলি ধীরে ধীরে এক স্থান থেকে অন্য স্থানে স্থানান্তরিত হচ্ছে, এই সঞ্চালনকে মহাদেশীয় সঞ্চারণ বলা হয়।

৩. তোমরা জানো মহাদেশ গুলি বছরে দুই থেকে কুড়ি সেমি করে সরে যায় এইরকম ভাবে ক্রমাগত সরে যেতে থাকলে 10 কোটি বছর পর পৃথিবীতে কি কি ঘটতে পারে বলে তোমার মনে হয়?
উত্তর : আমরা জানি আজকে যেখানে হিমালয় পর্বত আছে একসময় সেখানে টেথিস সাগর ছিল। অর্থাৎ সঞ্চালনের ফলে কাছাকাছি দুটি ভূমিরূপ আসলে নতুন ভূমিরূপ সৃষ্টি হয়। আর যখন দুটি ভূমিরূপ একে অপরের থেকে দূরে চলে যায় তখন সেখানে জলাশয় এর সৃষ্টি হয়।

৪. বিশ্ব উষ্ণায়ন কিভাবে ঘটে তা সংক্ষেপে ব্যাখ্যা করো।
উত্তর : সূর্যরশ্মি যতটা পরিমাণ পৃথিবীতে আসছে তার মাত্র 34 শতাংশ মহাশূন্যে ফিরে যায়। বাকিটা পৃথিবীতে থেকে যায়। এইভাবে বায়ুমণ্ডল ধীরে ধীরে উত্তপ্ত হচ্ছে। এছাড়াও শিল্প কারখানা বা লাখ লাখ গাড়ির ধোঁয়া থেকে বিষাক্ত গ্যাস বাতাসের সাথে মিশে যাচ্ছে। ফলে প্রতি পৃথিবীর উষ্ণতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। একেই বিশ্ব উষ্ণায়ন বলা হয়।

৫. বায়ুমন্ডলের একটি উলম্ব চিত্র অঙ্কন করো যেখানে উচ্চতার উল্লেখ করে ভূপৃষ্ঠ থেকে বায়ুমন্ডলের চারটি স্তর কে এবং স্তর গুলির অন্তর্বর্তী অঞ্চল কে দেখাতে হবে।

আরো পড়ুন : Model Activity Task Bengali Part 2 3 Class 6

কোন বিষয়ের কোন সমস্যা থাকলে নিচে কমেন্ট করে অবশ্যই জানাবেন। আমরা অবশ্যই সেই সমস্যার সমাধানে আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব।

 

Follow Us On :
0

Leave a Reply

Your email address will not be published.