ইঁদুরের মন্দির

ইঁদুরের মন্দির । Temple of Rats

আকর্ষণীয় পড়াশোনা

ইঁদুরের মন্দির

ইঁদুরের মন্দির । নাম শুনে চমকে উঠেছেন ? ঠিকই শুনেছেন। রাজস্থানের বিকানির জেলাতে একটি মন্দির আছে, করনি মাতা মন্দির। যেটা সারা পৃথিবীর লোক জানে Temple of Rats নামে।

লোক কথা আছে, করনি মাতার সন্তান লক্ষণ, কপিল সরোবর এর একটি পুকুরে জল খেতে গিয়েছিলেন । সেখানে হঠাৎ করেই তিনি ডুবে মারা যান । নিজের পুত্রের মৃত্যু শোক করনি মাতা সহ্য করতে পারেননি। তিনি যম এর কাছে তার পুত্রের জন্য জীবন ভিক্ষা করেন। প্রথমে মৃত্যুর দেবতা যম ফিরিয়ে দিলেও পরে বলেন, করনি মাতার সমস্ত পুরুষ বাচ্চা, ইঁদুর রূপে দ্বিতীয় জন্ম গ্রহণ করতে পারে।

যদি রাত্রে তাড়াতাড়ি ঘুমাতে না পারেন তাহলে অবশ্যই পড়ুন

কোন খাবার যদি ইদুরে খায় তাহলে সেটা উচ্চ পর্যায়ের সম্মানীয় খাবার ধরা হয়। বিংশ শতাব্দীতে এই মন্দির সম্পূর্ণ করেছিলেন বিকানির মহারাজা গঙ্গা সিং।

সবথেকে বড় আকর্ষণীয় বিষয় হলো এই মন্দিরে 25000 এর বেশি ইঁদুর আছে। কিছু সাদা ইঁদুর দেখা যায় এই মন্দিরে যেগুলি সারা পৃথিবীতে খুব কম আছে। এই মন্দিরে এসে যদি আপনি সাদা ইঁদুর দেখতে পান তাহলে সেটি অনেক বেশি পবিত্র বলে মনে করা হয়। মনে করা হয় আপনি অনেক বেশি আশীর্বাদ পাবেন। সেই জন্য যখন কোন পর্যটক এই মন্দিরে জান তিনি অনেক চেষ্টা করেন সাদা ইঁদুর দেখার জন্য। জন্য তিনি লোভনীয় খাবার এর সাহায্য নেন।

পৃথিবীর সবথেকে সুখী দেশের নাম কি

মন্দিরের নিয়ম আছে যদি আপনার ভুলের জন্য কোন ইঁদুর মারা যায় অথবা আপনি কোন ইঁদুরকে মেরে দেন তাহলে আপনাকে রুপোর তৈরি করা অথবা সোনার তৈরি করা একটি ইঁদুর মন্দিরে দান করতে হবে।

এই মন্দির খোলা হয় ভোর চারটের সময়। চরণ গোত্রের ব্রাহ্মণরা পূজার্চনা ভোর থেকেই শুরু করে দেন। বছরে দুবার করনি মাতা মেলা হয়। প্রথম মেলা হয় মার্চ এবং এপ্রিল মাস জুড়ে। এটাই করনি মাতার সবথেকে বড় মেলা। দ্বিতীয় মেলা হয় সেপ্টেম্বর এবং অক্টোবর মাসে। বহুদূর থেকে মানুষ নবরাত্রির সময় তীর্থযাত্রা জন্য পায়ে হেঁটে এই মন্দিরে আসেন।

ইঁদুরের মন্দির

যারা শুধু মরে কিন্তু নাহি দেয় প্রাণ কেহ কভু তাহাদের করেনি সম্মান । ভাবসম্প্রসারণ

https://www.facebook.com/JPslearning

ইঁদুরের মন্দির

Follow Us On :
1

Leave a Reply

Your email address will not be published.